০৭/০৮/২০২০ ১৮:৪৭:০৩

matrivhumiralo.com পড়ুন ও বিজ্ঞাপন দিন

প্রতি মুহূর্তের খবর

o নিরাপত্তা জোরদারের লক্ষ্যে পুলিশের মহড়া o অসহায় মানুষের পাশে পথশিশু ফাউন্ডেশন o অসহায়দের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ o মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি o পেয়ারা বেচা-বিক্রির জন্য রয়েছে ভাসমান বাজার
আপনি আছেন : প্রচ্ছদ  >  সাহিত্য  >  জীবন যখন বাঁক ঘোরে

জীবন যখন বাঁক ঘোরে

পাবলিশড : ০৪/০৪/২০১৮ ১৫:৩৮:৪৩ পিএম আপডেট : ০৪/০৪/২০১৮ ১৫:৫৪:২০ পিএম
জীবন যখন বাঁক ঘোরে

অাল মাহমুদ ::

লেখার পরতে পরতে ছড়িয়ে অাছে রোমাঞ্চ। এখানে পাওয়া যাবে সেই যুবক অাল মাহমুদকে যৌবন যখন তুঙ্গে তার। নতুন বিয়ে,বউ অার সংসার, মূলত এনিয়েই ক্ষুদ্র অাত্মজৈবনিক এই উপন্যাস। অাছে রোমান্টিসিজম অার অনুযোগ,তবে নেই দুঃখ-বেদনার লেশ।

নতুন বউকে নিয়ে ঢাকা থেকে নৌকায় চড়ে এগোচ্ছিলেন জন্মভূমি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উদ্দেশ্যে। এ এক অন্যরকম সুখের যাত্রা, ভিন্ন রকম অনুভূতি। যারা বিয়ে করেছেন কেবল তারাই হয়ত উপলব্ধি করতে পেরেছেন, অার যারা করেন নি তারা বইটি পড়তে পড়তে রোমান্টিসিজমে ডুবে যান ক্ষতি কী?

নয়া বউয়ের দিকে কবি তথা ঔপন্যাসিকের বারংবার লোভাতূর দৃষ্টি, মুহুর্তগুলোর বর্ণনা অার ভালবাসার উপমা অাপনাকে শিহরিত করবেই, লোভাতূর করবেই। কবি যখন উপন্যাসে হাত দেন সেখানে উপমা অার অলংকারের ঝড় তো বইয়ে যাওয়ারই কথা।এখানেও হয়েছে তাই। অাল মাহমুদ লিখেছেন,
” অামি দেখছিলাম ঝিলিক মারা নারীর অনাবৃত স্বাস্থ্যের সুষমা।অামি দেখছি অার লোভে অামার শরীরে ধুকধুকানি শুনতে পাচ্ছি। হৃদপিন্ড দুলছে যেন একটা পাকা অাতাফলের মত। এই কি তবে সেই ফল যার জন্য মানুষকে বেহেশত ছেড়ে মাটিতে নামতে হয়েছিল! অামি বুঝলাম অাদম কতটা নিরপরাধ ছিলেন। এই অমৃত ফলের দুলনি একবার যার চোখে লেগেছে সে তো অন্ধ উন্মত্ত দিশেহারা হবেই!”

বউয়ের সৌন্দর্যে অভিভূত মাহমুদ সুন্দরের সংজ্ঞাও দিয়েছেন নতুন করে। তার মতে ফর্সা রঙ হলেই সুন্দর নয়,সুন্দরের সংজ্ঞা পাল্টে লিখতে হবে স্বাস্থ্যের সৌন্দর্য।

গ্রামে নতুন বউ বরনের যে চিরায়ত রেওয়াজ তাও উঠে এসেছে জীবন যখন বাঁক ঘােরে’ বইটিতে। অাল মাহমুদ লিখেছেন, “এভাবেই চলতে চলতে অামরা এক সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া থানার ঘাটে এসে পৌঁছালাম। সেখান থেকে একটা রিকশা নিয়ে অামরা গন্তব্যে এসে দেখি অামাদের অাগমনের কথা থাকায় সবাই বধূবরণের জন্য ধানদূর্বা ইত্যাদি ডালায় সাজিয়ে রেখেছে।”

নতুন বউ,অতঃপর বাসর অার তারপর?
শুরু হলো সংসার যাত্রা, সে এক রোমাঞ্চকর যাত্রা। সে যাত্রায় অার কী কী থাকছে,বইটি নেড়েচেড়ে একটু দেখুন না !

এগোতে থাকল সময়-” পরের দিন শুরু হলো সংসারের অফুরন্ত রসের ভান্ডার। হাত দিলে ধরা যায়না,ধরলে পাওয়া যায়না। অার হাতের ভেতর কচলালে বেরিয়ে অাসে যেন উষ্ণ অারো অশ্রুজল। টলমল, ছলছল। সম্বল।